শনিবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৪, ৫ আশ্বিন, ১৪২১ সাইনইন | রেজিস্টার |bangla font problem


বাংলাদেশঃ একটি নর্দমামাতৃক দেশ

দুই অন্ধ লঞ্চে করে ঢাকা ফিরছে। মুন্সীগঞ্জ আসার পরঃ

১ম অন্ধঃ আমরা ঢাকা আইসা পড়ছি।
২য় অন্ধঃ [অবাক হয়ে] কেমনে বুঝলি?
১ম অন্ধঃ নাক দিয়া।
২য় অন্ধঃ নাক দিয়া?
১ম অন্ধঃ তুই ড্রেনের গন্ধ পাস না?
২য় অন্ধঃ পাইতাছি।
১ম অন্ধঃ এডা ঢাকার নদীর গন্ধ।

এই হচ্ছে একটি দেশের রাজধানীর পাশ দিয়ে প্রবাহিত নদীর পরিচয়। ছোটকালে বইয়ে পড়তাম, বাংলাদেশ একটি নদীমাতৃক দেশ। দক্ষিণাঞ্চলের মানুষ হওয়ায় নদী কী জিনিস, নদীর সৌন্দর্য কী জিনিস তা উপলদ্ধি করার সৌভাগ্য আমার হয়েছে। ছোটকাল থেকেই, ছোটখাট উপলক্ষে ছুটে যেতাম গ্রামের বাড়িতে, উদ্দেশ্য একটাই নদীভ্রমণটা উপভোগ করবো। নদীর সৌন্দর্য গায়ে মাখাবো। মাগার, মাগার ,মাগার।

বর্তমানে যেই অবস্থা দেখতাছি তাতে নদীর সৌন্দর্য গায়ে মাখাতে গেলে পরের দিনই মহাখালী ডায়রিয়া হাসপাতালে ভর্তি হওয়া লাগবে অথবা খোচঁ-পাছড়ার ডাক্তার দেখানো লাগবে। এডা তো নদী না, নর্দমা। আমরা সবাই মিলে অত্যন্ত দ্রুতগতিতে আমাদের নদীগুলোকে নর্দমায় পরিণত করার অভিযানে নেমেছি।

আমরা যারা দক্ষিণাঞ্চলে যাই তাদের অধিকাংশের যাত্রাপথ হচ্ছে নৌপথে। আমাদেরকে আগে সদরঘাট গিয়ে লঞ্চে উঠতে হয় এবং সেই লঞ্চখানা ঐতিহাসিক বুড়িগঙ্গা নদীর উপর দিয়ে চলাচল করে। কয়েক বছর আগে প্রথম যখন লঞ্চে উঠে নর্দমার গন্ধ পাই তখন বেকুব হয়ে এদিক ওদিক তাই। কিরে বাবা, আসলাম নদীতে, নর্দমার গন্ধ কোথা থেকে আসে? আমার মা আমাকে সান্ত্বনা দিলেন যে, পাগলার বুড়িগঙ্গা ব্রীজটি পাড় হলেই গন্ধ চলে যাবে। ঠিকই, ব্রীজের পরে গন্ধ চলে যেত এবং পরিষ্কার নদীর দেখা পেতাম।

কিন্তু গত সপ্তাহে যাওয়ার সময় যেই পরিস্থিতি দেখলাম তা দেখে সামুতে না এসে পারলাম না। আমাদের প্রিয় বুড়িগঙ্গা নদী এখন আর পাগলা পর্যন্ত না পুরোটাই নর্দমায় পরিণত হয়েছে। বুড়িগঙ্গা ব্রীজতো দূরের কথা, নদী নামক এই নর্দমাটি এখন প্রসারিত হতে হতে মুন্সীগঞ্জ পর্যন্ত চলে গিয়েছে।

অবস্থা যা দেখছি তাতে বুড়িগঙ্গাতো নর্দমা হয়েছেই, এখন ধীরে ধীরে সবগুলো নদীই নর্দমাতে রূপ নিবে এবং আমাদের ভবিষ্যত প্রজন্মকে নদীর নাম জিজ্ঞেস করলে তারা অনেক এরকম উত্তর দিবে (বাজে শব্দের জন্য দুঃখিত)ঃ

-> বলতো, কোনটি বুড়িগঙ্গা নদী?
উঃ কালো আলকাতরার মতো পানি যে নদীতে পাওয়া যায়।
-> বলতো, কোনটি মেঘনা নদী?
উঃ যেই নদীতে সবসময় গু ভাসতে দেখা যায়।
-> বলতো, এই নদীর নাম কেন পদ্মা নদী?
উঃ কারণ, এই নদীতে পাদের মতো গন্ধ আসে।

প্রিয় ব্লগারবৃন্দ, এখনি সময় এর বিরুদ্ধে রুখে দাড়ানোর। তা না হলে, যেই অবস্থা দেখতে পাচ্ছি তাতে ভবিষ্যতে বাংলাদেশ নদীমাতৃক দেশ না হয়ে নর্দমামাতৃক দেশে পরিণত হবে। তখন আমাদের পরীক্ষাগুলোতে এরকম প্রশ্ন থাকবেঃ

বাংলা (রচনা লিখ)ঃ বাংলাদেশঃ একটি নর্দমামাতৃক দেশ।
সমাজঃ বুড়িগঙ্গা নদর্মাটি কতসাল পর্যন্ত নদী হিসেবে পরিগনিত হতো?
বিজ্ঞানঃ আর্কিমিডিসের সূত্র প্রয়োগ করে বুড়িগঙ্গা নর্দমাকে নদীতে পরিণত কর।
ধর্মঃ বুড়িগঙ্গার পানি দিয়ে নামাজের ওযু করলে ওযু হবে না। এর কারণ কী?
গণিতঃ যদি ১ বছরে বুড়িগঙ্গা নদী ২০ কিমি দূষিত হয় তবে ১০ বছরে এটি কত কিমি দূষিত হবে?
১১ টি মন্তব্য
kamalghatail শ্যামল নওশাদ১৯ ডিসেম্বর ২০১২, ২৩:০৪
বিষয়টি ভাববার মতো। দুশ্চিন্তাগ্রস্ত হলাম।
hasanet অশিক্ষিত বালক২৩ ডিসেম্বর ২০১২, ১৬:১৭
আমিও
sopnerdin45 এনামুল রেজা২০ ডিসেম্বর ২০১২, ০০:০৬
মন খারাপ হল আপনার লেখাটা পড়ে।
বুড়ি গঙ্গা এখন তাও নর্দমা। একদিন সে নর্দমাও অতীত না হয়ে যায়।

ভাবনার বিষয় বড়ো।

শুভেচ্ছা আপনাকে চমৎকার সাবলীল লেখাটির জন্য।
hasanet অশিক্ষিত বালক২৩ ডিসেম্বর ২০১২, ১৬:১৭
‍‍‍কে ভাববে ভাই? ভাবার কেউ নাই।
toruntora তরুন্তরা খালিদ২০ ডিসেম্বর ২০১২, ০০:১৮
খুব ভয় পেয়ে গেছি....... আমাদের যে কি হবে???
hasanet অশিক্ষিত বালক২৩ ডিসেম্বর ২০১২, ১৬:১৮
খালি ভয় পাইলেন? গন্ধ পাইলেন না?
kamaluddin কামাল উদ্দিন২০ ডিসেম্বর ২০১২, ০৮:৪৩
অশিক্ষিত হলে আপনি ভালো জ্ঞান রাখেন দেখছি । সত্যিই আমাদের নদীগুলোর কথা ভাবলে ভবিষ্যত নিয়া শংকিত না হয়ে পারি না ।
hasanet অশিক্ষিত বালক২৩ ডিসেম্বর ২০১২, ১৬:১৮
প্রশংসার জন্য ধন্যবাদ।
sazzadfm মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন২০ ডিসেম্বর ২০১২, ১৫:৩৯
++++
hasanet অশিক্ষিত বালক২৩ ডিসেম্বর ২০১২, ১৬:১৯
ধন্যবাদ।
nurunnahar13 দিনের আলো২৩ জানুয়ারি ২০১৩, ২০:৫১
‌আপনার কথাগুলো শুনতে খারাপ হলেও সত্যি.......। তবে এজন্য আমাদের ব্যক্তিগত ভাবে সচেতন হওয়া উচিত।

সাম্প্রতিক পোস্ট Star

সাম্প্রতিক মন্তব্যComment